প্রকাশ্যে ঘুরছে জোড়া খুনের আসামিরা, মামলা তুলে নিতে হুমকি

স্টাফ রিপোর্টার:


ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার সাতমোড়া গ্রামের আলোচিত জোড়া খুনের মামলার আসামিদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (২১ অক্টোবর) বেলা ১১টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেন নিহতদের পরিবারের সদস্যরা।
২০১৭ সালের ১লা মার্চ নবীনগর উপজেলার জগন্নাথপুরে সাবেক বিজিবি সদস্য ইয়াছিন মিয়া ও তার ভায়েরা খন্দকার এনামুল হক খুন হন। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার কোনা আসামিকেই ধরতে পারেনি পুলিশ। নিহতের পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, আসামিরা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করলেও পুলিশ তাদের ধরছে না। উল্টো আসামিরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য অনবরত হুমকি দিচ্ছেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নিহত খন্দকার এনামুল হকের স্ত্রী তাসলিমা আক্তার বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর থানায় মামলার এজহার নিয়ে গেলে পুলিশ মামলা নিতে রাজি হয়নি। পরে আদালতে ২৬ জনকে আসামি মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে আদালত পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডিপ) মামলার তদন্তভার দেন।
তিনি আরও বলেন, সিআইডি মামলাটি তদন্ত করে এজহারে উল্লেখিত ২৬ জন আসামিসহ আরও দুইজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়। এরপর আদালত সব আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এর মধ্যে ১২ জন উচ্চ আদালত থেকে ২০১৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি জামিন পান। কিন্তু বাকি আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা বলবৎ থাকলেও তাদের গ্রেফতার করা হচ্ছেনা।

তাছলিমা আক্তার বলেন, মামলার আসামি ও সাতমোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুদ রানা নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম. এ. হালিমের ভাই। এম. এ. দলীয় প্রভাব বিস্তার করার কারণে পুলিশ আসামিদের গ্রেফতার করছে না। এর ফলে আমরা হত্যাকাণ্ডের বিচার পাচ্ছি না। উল্টো আসামিরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য আমাদের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। আসামিদের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে আমরা এখন ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরে চলে এসেছি। আমি আমার স্বামী এবং আমার বোন নাসিমা বেগমের স্বামী হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই।
সংবাদ সম্মেলনে নিহত সাবেক বিজিবি সদস্য ইয়াছিন মিয়ার স্ত্রী নাসিমা বেগম ও তাঁর সন্তানেরা উপস্থিত ছিলেন।

Related posts

Facebook Comments

Default Comments

Leave a Comment